1. sm.khakon@gmail.com : admin :
  2. rayhansumon2019@gmail.com : rayhan sumon : rayhan sumon
শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ০৯:৫৮ অপরাহ্ন

লাখাইয়ে সরকারি বই কেজি দরে বিক্রি !

বিশেষ প্রতিনিধি
  • সোমবার, ২৬ জুন, ২০২৩
  • ১০৪ বার পড়া হয়েছে

লাখাই উপজেলার বামৈ সরকারি মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মামুন-অর-রশিদ এর বিরুদ্ধে অবৈধ ভাবে স্কুলের সরকারি পুরাতন বই কেজি দরে এক ভাঙ্গারী দোকানীর কাছে বিক্রি করছেন অভিযোগ উঠেছে। এনিয়ে এলাকায় চাঞ্চল্যকর সৃষ্টি হয়েছে। রবিবার (২৫জুন) সকালে অত্র বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে।

র মধ্যে মাধ্যমিক স্তরের বাংলা, ইরেজি, গণিত, সাধারণ বিজ্ঞান, বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচিতি, ইসলাম ধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা, হিন্দু ধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা, ক্যারিয়ার শিক্ষা, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি, চারুপাঠ, কৃষি শিক্ষা, আনন্দপাঠসহ বিভিন্ন বিষয়ের বই রয়েছে বলে তথ্য পাওয়া গেছে।

স্থানীয় লোকজন জানান , স্কুলটির প্রধান শিক্ষক মামুনুর রশিদ এর নির্দেশে স্কুলের নাইট গার্ড চন্দনের মাধ্যমে স্থানীয় ভাঙ্গারী দোকানি জিয়া নামক যুবকের কাছে প্রায় ৭শত কেজি বই, কেজি দরে বিক্রি করেন।

প্রত্যাক্ষদর্শী স্থানীয় সাবেক ইউপি সদস্য নজির মিয়া জানান, আমি সকাল ৮টায় আমাদের একটি বিয়ের অনুষ্ঠানর নিমন্ত্রণ পত্র বিতরণ করতে বামৈ সরকারি উচ্চবিদ্যালয়ের পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় দেখি, স্কুলের নাইট গার্ড চন্দন পুরাতন বইয়ের অসংখ্য বান্ডিল একটি টমটম গাড়িতে তুলতেছে, পরে আমি চন্দন কে জিজ্ঞেস করলে সে বলল, মামুন স্যারের নির্দেশে এ বই গুলো কেজি ধরে বিক্রি হচ্ছে, একপর্যায়ে আমি গাড়ি চালককে গাড়ি থামাতে বললে আমার গাঁ ঘষে দ্রুতবেগে নিয়ে চলে যায়, পরে আমি ভাঙ্গারী দোকানের এক কর্মচারীকে জিজ্ঞেস করলে সে ৬১০ কেজি বই কিনেছে বলে জানান।

তিনি আরও জানান, আমি তাৎক্ষণিক লাখাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে অভহিত করছি এ ব্যাপারে, এছাড়াও আরও জানা যায়, বই গুলো প্রথমে দোকানের সামনে নিয়ে ফিল দিয়ে রাখার পর বই গুলো অন্যথে সরিয়ে ফেলা হয়।

অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক মামুন অর রশিদের সাথে আলাপকালে তিনি জানান, স্কুলের নাইট গার্ড বইসহ কিছু নষ্ট কাগজ পত্র কেজি দরে, প্রায় ৩/৪শত কেজি ৯হাজার টাকা মূলে এক হকারের কাছে বিক্রি করে দিয়েছে। পরে সেই টাকা সে ব্যাংকে জমা দিয়ে দিয়েছে।

নাইট গার্ড স্কুলের টাকা ব্যাংকে জমাদিবার এক্তিয়ার আছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, সেটা সে ভুল করেছেন বলে তড়িঘরি করে কল কেটে দেন।

বই ক্রেতা ভাঙ্গারী দোকানী জিয়া জানান, আমি প্রধান শিক্ষক মামুন মাস্টারের কাছ থেকে কেজি দরে ৪০০ কেজি বই কিনেছি। পরে বই গুলি অন্যথে বিক্রি করে ফেলছি।কত টাকা কেজি দরে বই কিনেছেন প্রশ্ন করলে তিনি ব্যাস্ত আছেন বলে কল কেটেদেন। স্কুলের নাইড গার্ড চন্দনের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলে যোগাযোগ করা সম্ভব হয় নি।

লাখাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাহিদা সুলতানা জানান, প্রধান শিক্ষক মামুন সাহেব আমার কাছ থেকে বই বিক্রির অনুমতি নেননি। আমি স্থানীয়দের মাধ্যমে বই বিক্রির বিষয়টি জানতে পেরেছি। তার বিরুদ্ধে তদন্ত সাপেক্ষে আইআনুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সামাজিক মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর
বানিয়াচং মিরর  © ২০২৩, সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত।
Developer By Zorex Zira

Designed by: Sylhet Host BD