1. sm.khakon@gmail.com : admin :
  2. rayhansumon2019@gmail.com : rayhan sumon : rayhan sumon
রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ০১:২৪ অপরাহ্ন

দখলদার ও টাকা আত্নসাতকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে জেলা প্রশাসক বরাবর আবেদন

বিশেষ প্রতিনিধি
  • সোমবার, ২৯ এপ্রিল, ২০২৪
  • ৪১ বার পড়া হয়েছে

বানিয়াচংয়ের ১নং খাস খতিয়ানভুক্ত ভাটি বাংলার পর্যটনখ্যাত ঐতিহাসিক সাগরদীঘি থেকে কোটি কোটি টাকা আত্নসাত,রাষ্ট্রীয় সম্পদ লুন্টনকারীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে জেলা প্রশাসক বরাবর লিখিত আবেদন করেছেন বানিয়াচং সাগরদীঘি ভূমিহীন সমবায় সমিতি ও সাগরদীঘির চারপাড়ের জনগনের পক্ষে সাগরদীঘির পূর্বপাড়ের নজরুল ইসলাম খানের পুত্র আশিকুর রহমান খান।

গত রবিবার (২১ এপ্রিল) এই আবেদন করেন তিনি। পরবর্তীতে বিষয়টি জেলা প্রশাসক রাজস্ব শাখাকে আবেদন যাচাই-বাছাই করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে নির্দেশনা প্রদান করেছেন জেলা প্রশাসক জিলুফা সুলতানা। আবেদনে বিবাদী করা হয়েছে সাগরদীঘির উত্তরপাড়ের মৃত অমরুত উল্লাহর পুত্র মো: জাহাঙ্গীর আলম, সাগরদীঘির পশ্চিমপাড়ের মৃত মন্নর উল্লাহর পুত্র বাবুল মিয়া, সাগরদীঘি পূর্বপাড়ের আজমান উল্লাহর পুত্র তাজুল ইসলাম ও ২নং ইউনিয়নের মিনাট মহল্লার মৎসজীবি মুকিত মিয়াকে।

আবেদন ঘেটে জানা যায়, বানিয়াচংয়ের সাগরদীঘি বিগত ১৯৮৭ সালে সরকার কর্তৃক খননের পর হতে উল্লিখিত বিবাদীগণ জোর জবরদস্তি ও একচেটিয়া আধিপত্য বিস্তার ও সিন্ডিকেট গঠন করে চারপাড়ের মানুষের উপর জুলুম নির্যাতন করে আসছে। তাদের ভয়ে কেউ মুখ খোলে কথা বলতে সাহস পায়না। এই কর্মকান্ডে চারপাড়ের মানুষ দীর্ঘ ২৩ বছর যাবত ভীত সন্তস্ত্র হয়ে জীবনযাপন করছে।

অভিযোগে আরো উল্লেখ করা হয়, ২০০২ সাল হতে তাদের মনগড়া কমিটি করে বিবাদীগন বিগত ০৭/০২/২০২৩ ইং সালের হিসাব অনুযায়ী আনুমানিক ৪ কোটি টাকা আতœসাত করেছে। অদ্যবধি পর্যন্ত তারা সঠিক কোন হিসাব দিতে পারে নাই। বিবাদীগণ চলতি বছরের উৎপাদিত মাছ প্রতিরাতে ৬০ হাজার টাকায় রাতের আধারে বিক্রি করে আসছে।

তারা সাগরদীঘি চারপাড় কেটে সরকার কর্তৃক নির্মিত সুইচ গেইটের পানি ছেড়ে দিয়ে পানি চাহিদা পুরণ না করে পরিবেশের দুষণ সৃষ্টি করছে। যার ফলে পর্যটনখ্যাত এই সাগরদীঘির নৈসর্গিক সৌন্দর্যের মারাতœক বিঘœ ঘটছে।

এছাড়া সাগরদীঘির চারপাড়ে অবস্থিত খাস ভূমিতে বিবাদীগণ ২ লাখ টাকা করে নিয়ে মানুষকে গৃহ নির্মাণের সুবিধা করে দিচ্ছে জাহাঙ্গীর গং। প্রতি বছর শুধু রাতে বেলায় ই চোরাইভাবে প্রায় ১ কোটি টাকার মাছ বিক্রি করে বলেও অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে। এরই প্রেক্ষিতে সাগরদীঘির মতো বিশাল জলমহালের এবং ঐতিহ্যবাহী পর্যটন স্থানে বিবাদীগণ বেআইনিভাবে জোরপূর্বক রাষ্ট্রীয় সম্পাদ আত্নসাত না করতে পারে এবং এর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করতে জেলা প্রশাসক বরাবর আবেদন করেছেন সাগরদীঘি চারপাড়ের জনগনের পক্ষে আশিকুর রহমান নামে এক ব্যক্তি।

এদিকে আবেদনের কপি জেলা পুলিশ সুপার ও জেলা দুর্নীতি দমন কমিশন বরাবর প্রেরণ করা হয়েছে। এই বিষয়ে বিস্তারিত জানতে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) প্রিয়াঙ্কা পাল জানান, লিখিত আবেদন পেয়েছি। বিষয়টি খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে ।

সামাজিক মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর
বানিয়াচং মিরর  © ২০২৩, সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত।
Developer By Zorex Zira

Designed by: Sylhet Host BD