1. sm.khakon@gmail.com : admin :
  2. rayhansumon2019@gmail.com : rayhan sumon : rayhan sumon
রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ০১:২৪ অপরাহ্ন

বিশ্বকাপ ক্রিকেট এনালাইসিস ২০২৩ : ম্যাচ নং-২৩ অস্ট্রেলিয়া বনাম নেদারল্যান্ডস

সৈয়দ সুহেল রানা
  • বৃহস্পতিবার, ২৬ অক্টোবর, ২০২৩
  • ৬১ বার পড়া হয়েছে

নেদারল্যান্ডসকে ৩০৯ রানের বড় ব্যবধানে হারালো অস্ট্রেলিয়া। বুধবার (২৫ অক্টোবর) ভারতের দিল্লির অরুন জেটলি স্টেডিয়ামে অজিদের চাপায় পিষ্ট হয়ে ৯০ রানেই অলআউট হয়ে গেছে নেদারল্যান্ডস। হরেছে ৩০৯ রানের বিশাল ব্যবধানে।

বিশ্বকাপের ইতিহাসে রানের হিসাবে সবচেয়ে বড় জয় এটিই। নিজেদের রেকর্ডই নতুন করে লিখল অস্ট্রেলিয়া।২০১৫ আসরে পার্থে আফগানিস্তানের বিপক্ষে তাদের জয় ছিল ২৭৫ রানে। এতদিন ওয়ানডেতেও যা ছিল অস্ট্রেলিয়ার সবচেয়ে বড় জয়।

ওয়ানডে ইতিহাসে অস্ট্রেলিয়ার এই ম্যাচের চেয়ে বড় জয় আছে আর কেবল একটিই- এই বছরের শুরুতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ভারতের ৩১৭ রানের জয়।

অস্ট্রেলিয়া এ দিন ৮ উইকেটে করে বিশ্বকাপে তাদের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৩৯৯ রান। জবাবে নেদারল্যান্ডস ২১ ওভারে গুটিয়ে যায় স্রেফ ৯০ রানে।

টস জিতে ব্যাটিংয়ে নামে অস্ট্রেলিয়া। ম্যাচের তৃতীয় ওভারে আরিয়ান দত্তকে টানা চারটি বাউন্ডারিতে ডানা মেলে দেয় ওয়ার্নার। তার উদ্বোধনী জুটির সঙ্গী মিচেল মার্শ অবশ্য বিদায় নেয় ৯ রান করেই।

দ্বিতীয় উইকেটে এরপর স্টিভেন স্মিথের সঙ্গে ১৩২ রানের জুটিতে দলকে এগিয়ে নেয় ওয়ার্নার। ৬৮ বলে ৭১ রান করা স্মিথকে থামায় আরিয়ান। ওয়ার্নারকেও দুবার ফেরানোর সুযোগ আসে। একটি রান আউট ও একটি ক্যাচের সুযোগ হাতছাড়া করে ডাচরা।

ওয়ার্নার ও মার্নাস লাবুশেনের ৮৪ রানের জুটিতে আড়াইশর কাছে পৌঁছে যায় অস্ট্রেলিয়া। আগ্রাসী ব্যাটিংয়ে ৪৭ বলে ৭ চার ও ২ ছক্কায় ৬২ রান করে লাবুশেন।

২২তম ওয়ানডে শতকে পা রাখে ৯১ বলে। বিশ্বকাপে ষষ্ঠ শতকে ওয়ার্নার পাশে বসে শচিন টেন্ডুলকারের। তাদের চেয়ে বেশি ৭টি শতক আছে শুধু রোহিত শর্মার।

শতকের পর আর বেশিদূর যেতে পারেনি অজি এই ডেশিং ওপেনার। জস ইংলিস ও ক্যামেরুন গ্রিন টিকতে পারেনি। ৪৩তম ওভারে অস্ট্রেলিয়ার রান ছিল ৬ উইকেটে ২৯০। সেখান থেকে চারশতে নিয়ে যাওয়ার কৃতিত্ব ম্যাক্সওয়েলের।

এই মাঠেই সপ্তাহ তিনেক আগে বিশ্বকাপের রেকর্ড ৪৯ বলে শতক করেছিলো দক্ষিণ আফ্রিকার এইডেন মাকারাম। তার চেয়ে ৯ বল কম খেলেই নতুন রেকর্ড গড়লো ম্যাক্সওয়েল।

সপ্তম উইকেটে প্যাট কামিন্সের সঙ্গে ম্যাক্সওয়েলের জুটিতে ৪৪ বলে আসে ১০৩ রান। যেখানে কামিন্সের অবদান স্রেফ ৮। বিশ্বকাপে সপ্তম বা এর নিচের উইকেটে অস্ট্রেলিয়ার রেকর্ড জুটি এটি।

বড় রান তাড়ায় মাক্স ও’ডাওড ও ভিক্রাম সিংয়ের উদ্বোধনী জুটিতে আসে ২৮ রান। মিচেল স্টার্ক এই জুটি ভাঙার পর থেকে নিয়মিতই উইকেট হারিয়ে একশর আগে গুটিয়ে যায় ডাচরা। সর্বোচ্চ ২৫ রান করে ভিক্রাম জিৎ সিং।

অস্ট্রেলিয়ার পাঁচ বোলারের সবাই পায় অন্তত একটি উইকেট। শেষের ৪টি নেয় জ্যাম্পা। আসরে প্রথম দুই ম্যাচ হারের পর টানা তিনটি জিতল অস্ট্রেলিয়া। পাঁচ ম্যাচে চতুর্থ হারের স্বাদ পেল নেদারল্যান্ডস।

৪৪ বলে ৮ ছক্কা ও ৯ চারে ১০৬ রানের বিধ্বংসী ইনিংস খেলে ম্যাচের সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হয় ম্যাক্সওয়েল। শতক স্পর্শ করে ৪০ বলে।

সামাজিক মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর
বানিয়াচং মিরর  © ২০২৩, সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত।
Developer By Zorex Zira

Designed by: Sylhet Host BD